বাবার স্বপ্ন পূরণ হোক!

রাজধানীর প্রগতি সরণি দিয়ে নূরে মক্কা বাস ছুটে আসছে। সেটার অপেক্ষা, তারপরে ছেলের হাত ধরে রাস্তাটা পেরিয়ে যাবেন। এমন একটি ছবি ভাইরাল হয়ে গেছে। বাবা ছেলের হাত ধরে নিয়ে যাচ্ছেন, এমন ছবি ভাইরাল কেন হবে? পাঠকদের মনে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন আসতেই পারে। কিন্তু এই ছবি আলাদা বিশেষত্ব বহন করে। এই ছবি অনেক অন্ধকার মেঘের ভিড়ে এক চিলতে উঁকি দেওয়া রোদ, সুতীব্র অনুপ্রেরণার। অন্তত নেটিজেনরা তাই মনে করছেন।

আজ থেকে গোটা দেশে শুরু হয়েছে এসএসসি পরীক্ষা। জীবনের একটি ধাপ পেরনোর পরীক্ষা। সাধারণত বাসার অভিভাবকরা বিশেষ করে বাবা পরীক্ষা দিতে নিয়ে যান ছেলে মেয়েদের। প্রতিদিন না পারলেও অন্তত প্রথমদিন বাবা-মা কেউ একজন থাকবেই। এমনই একজন বাবা রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় নিজের ছেলেকে পরীক্ষাকেন্দ্রে নিয়ে যাচ্ছিলেন।

বাবা হাঁটতে পারেন না। হাঁটুতে ভর করে চলেন। দুই পা মুড়িয়ে হাঁটুতে জুতা রেখে কষ্টেসৃষ্টে চলতে হয়। ছেলের হাত ধরে রাস্তা পেরোচ্ছিলেন। সেসময় মুরাদ নামের একজন বাবা ছেলের ছবি তোলেন। যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে দ্রুত। রাজধানীর বাড্ডা এলাকার ঘটনা হলেও বিস্তারিত জানা যায়নি। একই বাবা ছেলের ছবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যও ছবিটি শেয়ার করে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

‘ছবিটিকে পিকচার অফ দ্য ডে’ অনেকেই পোস্ট করছেন। ক্যাপশনে লিখে যাচ্ছেন একজন বাবা ও সন্তানের এগিয়ে যাওয়ার কথা, বাবার স্বপ্ন পূরণের কথা। কেউ কেউ মুগ্ধতার অ্যালবাম বানিয়ে রেখে দিচ্ছেন ছবিটিকে। অর্থাৎ দেশীয় সোশ্যাল মিডিয়াজুড়ে আজ যেন একজন বাবার স্বপ্ন পূরণের প্রার্থনা।

লেখক ভট্টাচার্য ছবিটি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘পৃথিবীর সকল বাবার স্বপ্ন পূরণ হোক। শুভ কামনা রইলো সকল এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য।’

করোনা মহামারির প্রকোপ কমিয়ে আসায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার মধ্যেই সারা দেশে শুরু হয়েছে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা। আজ রবিবার (১৪ নভেম্বর) সকাল ১০টা থেকে এই পরীক্ষা শুরু হয়।

এবার পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ২২ লাখ ২৭ হাজার ১১৩ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে এসএসসি পরীক্ষায় ১৮ লাখ ৯৯৮ জন, দাখিলে তিন লাখ এক হাজার ৮৮৭ জন এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) এক লাখ ২৪ হাজার ২২৮ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। দেশের বাইরের আটটি কেন্দ্রে ৪২৯ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছে।

পরীক্ষা শেষ হবে আগামী ২৩ নভেম্বর। শেষ হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশ করা হবে। কভিড মহামারি পরিস্থিতিতে পরীক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নজর দিয়ে এবার বাড়তি প্রস্তুতি নিয়েছে কেন্দ্রগুলো। একই সঙ্গে শিক্ষক ও অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্টদের জন্য পরীক্ষার আগে ও চলাকালে করণীয় নিয়ে নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।